ইউ.এন.ও আশরাফুল আলমের উদ্দ্যোগে সাটুরিয়ায় “গ্রামীন অ্যাম্বুলেন্স” সার্ভিস এর যাত্রা শুরু।

আমিনুল ইসলাম সেলিম (বিশেষ প্রতিনিধি):-

মানিকগঞ্জ’র সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব,আশরাফুল আলম এর মানবিক উদ্দ্যোগে এবং উপজেলা পরিচালন উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে ও উপজেলা পরিষদ এর ব্যবস্থাপনায় উত্তরা মোটর্স এর সহযোগীতায় সাটুরিয়ায় চালু হলো ইউনিয়নভিত্তিক জরুরী রোগী পরিবহন সেবা সার্ভিস।

বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং জেলা সদর হাসপাতালে জরুরী স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের লক্ষে “গ্রামীন এ্যাম্বুলেন্স” নামের পরি-সেবাটির কথা ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে আলোড়ন তৈরী করেছে।

তথ্যমতে,সাটুরিয়া উপজেলার যেকোন ইউনিয়ন থেকে ৪০০/- টাকায় উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্স এবং ৬০০/- টাকায় জেলা সদর হাসপাতালে রোগী পরিবহন করবে এই এ্যাম্বুলেন্স।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান…..
“তখন সদ্য যোগদান করেছি সাটুরিয়া উপজেলার ইউএনও হিসেবে।
ঢাকার কাছের উপজেলা হিসেবে কল্পনায় যতটা উন্নত হিসেবে উপজেলাকে কল্পনা করেছিলাম বাস্তবে সেরকম দেখিনি।
বিশেষ করে ইউনিয়নগুলো থেকে উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা কিছুটা পিছিয়ে পড়া মনে হয়েছে; রাস্তাগুলোও সরু। তখনই চিন্তা হচ্ছিল এসব জায়গা থেকে মানুষ কীভাবে অসুস্থ রোগীকে বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের হাসপাতালে পৌছে দিবে।
এরকম একটা সমস্যা থেকেই মাথায় ভাবনা কাজ করছিল কীভাবে আরেকটু সহজভাবে এরকম দূরবর্তী জায়গা থেকে রোগীদের বিশেষ করে প্রসুতি মায়েদের জন্য চিকিৎসা সেবা প্রাপ্তি আরো সহজ করা যায়।
চিন্তা ছিল সিএনজি ইঞ্জিন এর সাথে কাস্টমাইজড বডি দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স বানানোর কিন্তু যারা সিএনজি গাড়ি আমদানি করে এমন কয়েকটা জায়গা নক করে মন খারাপই হয়েছিল।
সবশেষে নক করলাম উত্তরা মোটর্স-এ। একদিন ঢাকায় উত্তরা মোটর্স-এর হেড অফিসেই চলে গেলাম চেয়ারম্যান মহোদয়ের সাথে সাক্ষাতে।
আলাপে জানলাম আমি যেটা চাই এরকম একটা সার্ভিস উনি সারা বাংলাদেশের জন্য ভাবছেন। দুইয়ে দুইয়ে চার মিলে গেল। এরপর অনেক কিছু……।

অবশেষে, আমাদের উপজেলা উন্নয়ন ও পরিচালন প্রকল্পের মাধ্যমে দুইটা অ্যাম্বুলেন্স কেনা হয়।
গ্রামীণ সরু রাস্তায় চলবে বলে নাম রাখা হয় “গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স”।

তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক,জেলা প্রশাসক মহোদয়, উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য যে, সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদানের পর থেকেই বিভিন্ন দূরদর্শী ও সময়োপযোগী কর্মপরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে তিনি উপজেলা’জুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।
মানিকগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া ইউ.এন.ও আশরাফুল আলমের জন্য শুভকামনা জানিয়েছেন সর্বস্তরের জনগন।

এই বিভাগের আরও খবর লেখক থেকে আরও