উলিপুরে সরকারি বই কালো বাজারে বিক্রয়ের অভিযোগ

শাহীন মন্ডল,উলিপুর(কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
কুড়িগ্রামের উলিপুরে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের হেফাজতে থাকা সরকারি বই কালো বাজারে বিক্রয় করার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ভ্রাম্যমান আদালত একজনের জরিমানা করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে, রোববার (০৯ ফেব্রুয়ারী) পৌর শহরের সরকারি খাদ্য গুদাম সংলগ্ন এলাকায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
উপজেলা মাধ্যমিক অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ ও ১৯ সালের প্রথম শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের মাদ্রাসার সরকারি বই অফিস হেফাজতে থাকা মদিনাতুল উলুম মাদ্রসার গোডাউন থেকে ওই অফিসের নৈশ্য প্রহরী শহিদুল ইসলাম (৪২) কর্তৃপক্ষে অগোচরে কালো বাজারে বিক্রয় করেন। রোববার (০৯ ফেব্রুয়ারী) পৌর শহরের সরকারি খাদ্য গুদামের গেট সংলগ্ন জনৈক শাহাবুদ্দিন ওরফে সাহেব আলীর ভাংড়ির দোকানের সামনে থেকে ১৬ বস্তা সরকারি বই জনতা আটক করেন। সংবাদ পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোহেল সুলতান জুলকার নাঈম কবির, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রবসহ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে বই গুলো উদ্ধার করেন। এ সময় ভাংড়ির দোকানদার শাহাবুদ্দিনের গুদাম ঘরে প্রচুর পরিমান সরকারি বই মজুদ থাকায় উদ্ধারকৃত বইগুলি ওই সেখানে রেখে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওই গুদাম সিলগালা করে দেন। পরে উদ্ধারকৃত ১৬ বস্তা বইয়ের সাথে থাকা দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার কালাইঘাটি কাজিপাড়া গ্রামের বছির উদ্দিনের পুত্র রাখিবুল ইসলাম ওরফে আব্দুর রহিম (৫০) কে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হয়। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আব্দুর রহিম স্বীকার করেন বই গুলি তিনি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের হেফাজতে থাকা মদিনাতুল উলুম মাদ্রসার গোডাউন থেকে ওই অফিসের নৈশ্য প্রহরী শহিদুল ইসলামের মাধ্যমে নিয়েছেন। সরকারি বই কালোবাজারে বিক্রয়ের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোহেল সুলতান জুলকার নাঈম কবির বলেন, সরকারি বই সঙ্গে থাকার কারনে একজনের জরিমানা করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে বলা হয়েছে।

You might also like More from author