একজন পতিতার বাস্তব জীবন কাহিনী

লেখক- মিলন হোসেন

নিষিদ্ধ কানা গলিতে একটি ছেলে ঢুকলো, রুমে গেল খাটে বসলো, পতিতা টা রেডি হচ্ছে যেভাবে অন্য পুরুষদের সাথে নিজেকে মেলে ধরে, ছেলেটা প্রশ্ন করল, কেন আপনি এই ঘৃণিত অন্ধ গলিতে, মেয়েটা বলল, এমন প্রশ্ন কি আপনার মুখে সাজে, মেয়েটা বলল আমার সময় কম, আপনাদের সুশীল সমাজের কিছু খরিদ্দার আছে,
ছেলেটা তার হাতে তার প্রাপ্য টাকাটা বুঝিয়ে দিয়ে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, মেয়েটা বলল আপনি এমনি এমনি টাকা দিলেন, ছেলেটা বলল এই প্রশ্নের উত্তরটা নিতে আজ প্রথম কোন অন্ধ গলিতে আমি ঢুকলাম, মেয়েটা বলল কেন আমাদের নিয়ে কি কোন উপন্যাস লিখবেন,যদি লেখেন এটাও লিখবেন আমাদের মৃত্যুর পরে জানাযায় মানুষ আসে না, কিন্তু আমাকে ভোগ করার জন্য সিরিয়ালে শত শত মানুষ অপেক্ষায়, কেন আমার মৃত্যুর আগে আমাকে ভালোবাসবেন আদর করবেন দামী দামী উপহার পাঠাবেন, আর মৃত্যুর পরে আমরা এতটাই পচে যায়, আরেকটা কথা শুনে যান, আমার জীবনের প্রথম পুরুষের কথা আমি কোনদিন ভুলবো না, আর আপনি কোন দ্বিতীয় এক পুরুষ, মৃত্যুর আগে ভুলবো না আপনাদের দুই জনের, তবে আপনাদের আগমনে আমার দরজা সব সময় খোলা থাকবে, ছেলেটা বলল, কেন এমন মনে হল আমি কি আপনার কাছে আসব কখনো, মেয়েটা বলল, আপনাদের সমাজের প্রতিটি শ্রেণীর মানুষ আমাদের শরণাপন্ন হয়, শেষ পৃষ্ঠায় এটাও লিখে দিয়েন আমার একটা কন্যা সন্তান আছে সেও প্রতিতা হবে, আর আমাদের এই জায়গার নামটা পতিতালয় না দিয়ে, কিছু অসামাজিক ব্যক্তির কামনা মেটানোর আশ্রয়স্থল হলে ভালো হতো, হ্যাঁ আপনারা আমাদের কিছু টাকা দেন,কিন্তু কোথাও গিয়ে দাঁড়ালে যে শব্দটা ব্যবহার হয়, আমি না হয় পতিতা হয়ে আমার জীবন শেষ করলাম, পারলে আমার মেয়েকে কানা গলি থেকে নিয়ে, আলোর গলিতে দিয়েন, আমি বা আমরা বলতে পারব এই শহরের চরিত্র কেমন।

You might also like More from author