পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা লবিং গ্রুপিং শুরু

মো:মোস্তফা কামাল সরকার গনটেলিভিশন, আটোয়ারী(পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা লবিং গ্রুপিং শুরু করেছেন।

জানা গেছে, আসছে মার্চ -এপ্রিল মাসের মধ্যে আটোয়ারীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হরে। নির্বাচনের সময় যতই কাছে এগিয়ে আসছে সম্ভাব্য প্রার্থীরা ততই লবিং গ্রুপিং জোরদার করছেন আটোয়ারী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে এবার প্রায় ৪০জন চেয়ারম্যান প্রার্থী দলীয় সমর্থন সহ ভোটারদের সমর্থন আদায়ের জন্য মাঠে দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন।

সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন, ১নং মির্জাপুর ইউনিয়নের আওয়মীলীগ সমর্থক বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ ওমর আলী, এমদাদুল হক, সেলিম মোর্শেদ মানিক, জয়েন উদ্দীন, আইয়ুব আলী। বিএনপি সমর্থক সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ আজাদ , সাবেক চেয়ারম্যান মির্জা নুরুল ইসলাম হেলাল ও নিয়াজ আলী। ২নং তোড়িয়া ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামীলীগ সমর্থক মোঃ ফজলুল করিম,জয়নুল হক (কহিনুর), সরওয়ার হোসেন (বাবুল), আবু তাহের, মোহাম্মদ শাহ্, হাসান হাবিব আল আজাদ।

বিএনপি’র সমর্থক প্রার্থীরা হলেন, মোঃ সাইদুর রহমান, সাবেক চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম, মাসুদ পারভেজ। ৩নং আলোয়াখোয়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ সমর্থক মোঃ জামিলুর রেজা মানিক, মোজাক্কারুল আলম কচি, কামরুজ্জামন(কামু), বর্তমান চেয়ারম্যান প্রদীপ কুমার রায়ের একমাত্র পুত্র পংকজ কুমার রায়(ডাবলু)। বিএনপি সমর্থক সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ তৌহিদুল ইসলাম ও মিলনে আজম। ৪নং রাধানগর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ সমর্থক বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আবু জাহেদ, সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ রশিদুল ইসলাম, মিজানুর রহমান। বিএনপি সমর্থক মোঃ জহিরুর ইসলাম, আব্দুল্যাহেল বাকী, বদিউজ্জামান মানিক। ৫নং বলরামপুর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ সমর্থক বর্তমান চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সাইদুর রহমান, আলহাজ্ব মোঃ দেলোয়ার হোসেন, চন্দন কুমার বর্মন। বিএনপি সমর্থক মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ও এ্যাডভোকেট আশরাফুল ইসলাম । ৬নং ধামোর ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামীলীগ সমর্থক মোঃ মাসুদ করিম, আবু তাহের দুলাল, আনোয়ার হোসেন। বিএনপি সমর্থক বর্তমান চেয়ারম্যান কাজী নজরুল ইসলাম দুলাল ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ জালাল উদ্দীন। সম্ভাব্য ইপি চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামীলীগ সমর্থিত অনেক প্রার্থীই বলেছেন, নৌকা প্রতিকের টিকেট পেলে নির্বাচনে প্রার্থী হবেন অন্যথায় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করবেন না এবং বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন না। আবার বেশ কিছু আওয়ামীলীগ সমর্থক সম্ভাব্য প্রার্থী বলেছেন, দলীয় প্রতিক না পেলেও জনসমর্থন রয়েছে। ভোটারদের চাহিদার কারণেই নির্বাচন করতে হবে। অপরদিকে বিএনপি’র সম্ভাব্য প্রার্থীরা বলছেন, ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করবেন।

ইতিমধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের সমর্থন আদায়ের জন্য প্রতি রাতে পাড়া মহল্লায় উঠান বৈঠক করা শুরু করেছেন। দলীয় প্রতিকের টিকেট পাওয়ার আশায় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা দলের নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়মিত লবিং-গ্রুপিং চালিয়ে যাচ্ছেন।

এই বিভাগের আরও খবর লেখক থেকে আরও