বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশের পথ পরিক্রমা “

ডঃ মিস্ত্রী
সিনিয়র গবেষক
রিসার্চ ও ডেভেলপমেন্ট
জেনেটিক এবং মোলিকুলার বায়োলজি
এমোরি বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকা

বাংলাদেশ বিশ্বের বিস্ময়, উন্নয়নের এক ম‍্যাজিক রোল মডেল। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ আজ একটি সমীহের নাম। সবার অজান্তেই সকল বাধা অতিক্রম করে বাংলাদেশে এক অভূতপূর্ব নিরব বিপ্লব ঘটে চলেছে, ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা ও রুপকার সজীব ওয়াজেদ জয়ের হাত ধরে।

যাহা দশ বছর আগে কেউ কখনো কল্পনাই করতে পারেনি। বিশ্বে একমাত্র (Unique) ব্যক্তি যিনি নিজস্ব তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে বাংলাদেশের জনবল দিয়ে অতি অল্প সময়ে একটি জনবহুল দেশকে “ডিজিটাল বাংলাদেশ” এ রূপান্তর ঘটিয়েছেন। আজ বাংলাদেশের সকল স্তরের জেনারেশন (পুরাতন, মধ্যম এবং নতুন) মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্রাউজ করছে। কম্পিউটার প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে তৃণমূলের জনগনও ব্যবহার করছে। এটা দিয়ে বিশ্বের সকল দেশের প্রযুক্তির সাথে বাংলাদেশের জনগনের সেতুবন্ধন (Connectivity) রচিত হয়েছে। মানুষ এখন ঘরে বসে জানতে পারছে পৃথিবীর অন্যান্য উন্নত দেশের মানুষ কি ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জীবনমান উন্নয়ন করছে।

আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তার পিতৃপুরুষের দেশ কেনিয়াতে জাতীর উদ্দেশ্যে এক ভাষনে বলেছিলেন, “কেনিয়াকে ডিজিটালাইজেশন করতে গেলে তোমরা বাংলাদেশকে অনুসরন করো।

এই জনবহুল বাংলাদেশ আগামী দিনে দক্ষ জনশক্তির বাংলাদেশে রূপান্তর ঘটতে চলেছে, যাহা সোনার বাংলা গড়ার জন‍্য বিশেষ প্রয়োজন। এটাই ছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর পাকিস্তান কারাগার থেকে তার নতুন স্বপ্নের দেশে পা রেখে অশ্রু সজল নয়নে একমুঠো মাটি হাতে নিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, “আমার ত্রিশ লক্ষ লোককে মেরে ফেলেছে, আমি কাদের দিয়ে এই দেশ গড়বো”। তার সেই স্বপ্ন আজ বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের আইকন বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের হাত ধরে পুরন হতে চলেছে।

একটা দেশের জনগন ও রাজনৈতিক নেতৃত্ব একে অপরের পরিপূরক। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শকে ধারণ করে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধামুক্ত ও দারিদ্র্যমুক্ত (No hunger and No poverty) অসাম্প্রদায়িক ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের লক্ষে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে সহযোগিতা করার জন‍্য জনগনকে এগিয়ে আসা উচিত।

এই বিভাগের আরও খবর লেখক থেকে আরও